Header Ads

হুবুহু স্কান করুন সহজে মোবাইল দিয়ে । Scan Documents by Your Android Phone।




মোবাইল স্ক্যানার অ্যাপস
অ্যাপসটি কাদের দরকার হতে পারে
চাকুরীজীবী ছাত্র ছাত্রী অথবা ব্যবসায়ীদের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয়।

এটা কি মূল স্ক্যানার এর বিকল্প হতে পারে
অবশ্যই হতে পারে।

আমি নিজে গত দুই বছর আমার অফিসের স্ক্যানারটি বন্ধ করে রেখেছি।
বা এখন আর ব্যাবহার করছি না। কারণ  এক্সটার্নাল স্ক্যানার ইউজ করা আমার কাছে খুবই ঝামেলা জনক।

মোবাইল স্ক্যানার টি ও অত্যন্ত কার্যকরী। কারণ এখন প্রায় প্রত্যেকটিটি মোবাইল ফোনেই হাই রেজুলেশনের ক্যামেরা থাকে। যা দিয়ে আপনি অনায়াসেই সুন্দর সুন্দর স্ক্যান করতে পারেন ডকুমেন্টস গুলোকে।

ছাত্রছাত্রীরা প্রয়োজনে তাদের শীট ফটোকপি না করেই স্ক্যানার দিয়ে স্ক্যান করে একটি বই আকৃতির বানিয়ে রাখতে। এবং পরে সেটি মোবাইলে অথবা ল্যাপটপে ডেক্সটপে কোলে পড়তে পারে পিডিএফ বই এর মত।

এ্যাপসটি কোথায় পাওয়া যায়
গুগোল প্লে স্টোর থেকে ফ্রি তে ইন্সটল করা যায়।

অ্যাপসটি কিভাবে কাজ করে
ইনস্টল করার পরে অ্যাপস টি ওপেন করুন । অ্যাপটি ওপেন করার পরে নিচের দিকে দেখবেন ক্যামেরা অথবা প্লাস আইকন দেখাচ্ছে। সেখানে ক্লিক করলেই স্ক্যানারটি অথবা ক্যামেরা টি ওপেন হবে ‌ । এবার ওপেন হলে যেটি স্ক্যান করতে চান সেটির ছবি তুলুন। তুলার পরে দেখবেন যে চারো দিকে একটি চতুর্ভুজ আকৃতির একটি আইকন দেখাচ্ছে কেন কতটুকু করবেন সেটি সিলেক্ট করার। অর্থাৎ আপনি কতটুকু অংশ স্ক্যান করবেন ছবি থেকে কেটে সেটি দেখাবে।
আপনি আপনার মত করে সেটি কেটে নিবেন ।

যতটুকু স্ক্যান করার দরকার সেটুকু সিলেট করার পরে উপরের ডান দিকে দেখবেন টিক চিহ্ন আইকন দেখাচ্ছে।

সেখানে ক্লিক করলে সেভ হয়ে যাবে একটি নাম দিয়ে সেটি সেভ করতে পারেন।

এছাড়া আপনি যদি চান ফোনের ভিতরে তোলা কিছু ডকুমেন্ট স্ক্যান করতে, সে ক্ষেত্রে আপনি স্ক্যানারটি ওপেন করে উপরের ডান দিকে দেখবেন মেনু অপশন। সেখান থেকে ইমপোর্ট ফরম গ্যালারি থেকে আপনি যেই ডকুমেন্ট স্ক্যান করতে চান সেটি সিলেক্ট করে নিয়ে আসুন এবং পূর্বের নিয়ম অনুযায়ী স্ক্যান করে ওকে দিন।

কিভাবে শেয়ার, পাঠাবো বা প্রিন্ট করব
স্ক্যানার খুলে যে ডকুমেন্টটি সেন্ড ইমেইল করতে চান সেটি ওপেন করুন
ডান দিকে উপরে মেনু অপশন এর পাশে দেখবেন শেয়ার আইকন দেখাচ্ছে। এখান থেকে আপনি ইমেইল হোয়াটসঅ্যাপ মেসেঞ্জার
ইত্যাদি অপশন গুলোর মাধ্যমে সেটি শেয়ার করতে পারেন।

শেয়ার অপশন এর জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় হলো ইমেইল করা।
কারণ ইমেইল করার মাধ্যমে ছবির রেজুলেশন ঠিক থাকে।

আর কি কি প্রয়োজনীয় অপশন আছে ঃ এছাড়া স্ক্যান করার পরে আপনি ইচ্ছা করলে ব্রাইটনেস কমাতে বাড়াতে পারেন। অর্থাৎ স্ক্যান করা ডকুমেন্ট এর ফন্টের  কালার কমাতে বাড়াতে পারেন। স্ক্যান করা ডকুমেন্ট এর ধরন আপনি নিজের মতো করে করতে পারেন।
যেমন স্ক্যান করার পরে নিচে কয়েকটি অপশন দেয়া থাকবে ,
ব্রাইট এন্ড হোয়াইট, কালার, ফটোকপি ইত্যাদি।

নরমাললি ফটো ককি করলে ব্রাইটেন হোয়াইট অপশনটি সবচেয়ে ভালো হয়।
এছাড়া ডকুমেন্ট থেকে পিডিএফ না জেপিইজি মোডে সেভ হবে সেটিও সিলেক্ট করা যাবে।

কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.